Breaking News
Home / জাতীয় / Video: পুলিশ নিষেধ করার পরেও সমুদ্রের মাঝে বিপজ্জনকভাবে সেলফি নিতে থাকলেন মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী

Video: পুলিশ নিষেধ করার পরেও সমুদ্রের মাঝে বিপজ্জনকভাবে সেলফি নিতে থাকলেন মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী

সবার খবর, ওয়েব ডেস্ক: মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস-এর স্ত্রী অমৃতা ফড়নবিসের একটি ভিডিও সামনে এসেছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি সকল ধরনের বাধা অতিক্রম করে সেলফি নিচ্ছেন। তাও একদম ক্রুজের কিনারায় বসে। ভিডিওটি একটি ক্রুজের। ভিডিওতে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী অমৃতা সকল ধরনের সুরক্ষা লাইন অতিক্রম করে ক্রুজের কিনারায় চলে যাচ্ছেন ও সেলফি নিচ্ছেন। তার সঙ্গে উপস্থিত সুরক্ষা কর্মীরা বারবার নিষেধ করা সত্ত্বেও তা শুনতে নারাজ তিনি।
ফড়নবিস ক্রুজেদেবেন্দ্রা ফড়নবিসের স্ত্রী
তিনি নিজের ইচ্ছে মত সেলফি নিতে থাকেন। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যাপকভাবে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি ও মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস মুম্বাই পোর্টে একটি ঘরোয়া বৈঠকে উপস্থিত হওয়ার পর ক্রুজ টার্মিনাল উদ্বোধনের একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন। এই সময় মুম্বাই থেকে গোয়া ক্রুজ সার্ভিসের যাত্রা শুরু হয়। সেই সময় মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস-এর স্ত্রী অমৃতা ক্রুজের সেফটি লাইন ক্রস করে এক কোণে গিয়ে বসে পড়েন। সেখানে তিনি সেলফি তোলেন।
ফড়নবিসের স্ত্রী

যখন অমৃতা সেলফি নিতে ব্যস্ত সেই সময় এক মহিলা পুলিশ কর্মী অমৃতাকে বারবার নিষেধ করতে দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু তিনি একজন মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী। তাই খুব একটা জোর করতে পারছিলেন না পুলিশ কর্মীরা। পরবর্তীতে সেই পুলিশ কর্মী সুরক্ষা গার্ডদের ডেকে পাঠান। সুরক্ষা গার্ডের দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিদেরকে ওই পুলিশ কর্মী অমৃতার পিছনে আসতে বলেন। সুরক্ষা গার্ডরাও তার এই ব্যবহারে ক্ষুব্ধ হন এবং তাকে সেখান থেকে সরে আসতে বলেন কিন্তু অমৃতা সেখানে বসে থাকেন এবং মনের সুখে সেলফি নিয়ে যান।
আরও পড়ুন: Video: এই ভয়ানক স্টান্ট করতে গিয়ে শাহরুখ খান মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন

Check Also

টিপু সুলতান জয়ন্তী

বিজেপির মন্ত্রী টিপু সুলতানের প্রশংসা করে বললেন, সম্মান দেওয়া উচিত

সবার খবর, ওয়েব ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকারের মন্ত্রী স্বামী প্রসাদ মরিয়া টিপু সুলতানকে নিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *