Home / খেলার খবর / তৃতীয় বারের মতো খেতাব জিতে নিল নাইট রাইডার্স। শাহরুখের মুখে চওড়া হাসি

তৃতীয় বারের মতো খেতাব জিতে নিল নাইট রাইডার্স। শাহরুখের মুখে চওড়া হাসি

খেলার খবর: ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের ফাইনাল খেলা ছিল ব্রায়ান লারা স্টেডিয়ামে। ওই ফাইনাল ম্যাচটিতে ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ও গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স একে অপরের মুখোমুখি হয়েছিল। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে গায়ানা ক্রিকেট দল নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪৭ রানের স্কোর দাঁড় করান। শাহরুখ খানের দল ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স দুই উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৭.৩ ওভারেই লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছে যায়। ফলে ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স খুব সহজেই ৮ উইকেটে পরাজিত করে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্সকে। তৃতীয়বারের মতো ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ অর্থাৎ সিপিএলের শিরোপা জিতে নিল ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। এই ম্যাচে বিজয়ী দলের বোলার খেরি পিয়ারে ২৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন। তিনি ফাইনালে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হন।
সিপিএল বিজয়ী দল
এই ম্যাচে নাইট রাইডার্স দলের অধিনায়ক ডোয়াইন ব্রাভো প্রথমে টসে জিতে আমাজন ওয়ারিয়র্সকে ব্যাট করতে পাঠান। গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্সের শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি। ওপেনিং ব্যাটসম্যান ক্যামেরন ডেলপোর্ট ম্যাচের প্রথম বলেই শূন্য রানে প্যাভিলিয়নে ফেরত যান। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সিমরন ১৫ ও লুক রঞ্চি ৪৪ রান করেন। তাদের পার্টনারশিপ ৫২ রানে এসে ভেঙে যায়। পরবর্তী ব্যাটসম্যানরা ঠিকমতো ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স বোলারদের সামলাতে পারেননি। ১৩ ওভারে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্সের রান গিয়ে দাঁড়ায় পাঁচ উইকেটের বিনিময়ে ৯৫।
সিপিএল ২০১৮
লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স দলের ওপেনিং ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন ম্যাতকুলাম ও দীনেশ রামদিন বিধ্বংসী ব্যাটিং শুরু করেন। ম্যা কুলাম ২৪ বলে ৩৯ রান ও রামদিন ৩০ বলে ২৪ রান করেন। তারা দুজনে মিলে ৫২ রানের একটি দুর্দান্ত পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন। এরপর কলিন মুনরো ৩৯ বলে ৬টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ৬৮ রানের ইনিংস খেলেন। কলিন মুনরো এই টুর্নামেন্টে সবচাইতে বেশি ৫৬৭ রান করেন ও ম্যান অব দ্যা সিরিজ হন। টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বেশি উইকেট নেন ফাহাদ আহাম্মেদ। তিনি মোট ২২টি উইকেট নেন। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে মোট ৫৩০টি ছক্কা হয়। যার মধ্যে সবচাইতে বেশি ২৯টি ছক্কা হাকান জ্যামাইকা তালয়াজ দলের গ্লেন ফ্লিপস।
আরও পড়ুন: বিরাট কোহলিকে রেস্ট দেওয়া বাহানা আসলে পাকিস্তানের সাথে হারার ভয়: মঈন খান

Check Also

bangladesh vs srilanka 2020

অনিশ্চয়তায় পূর্ণ টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর

Bangladesh VS Srilanka 2020: বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা যাওয়ার সম্ভাব্য তারিখ ৭ থেকে ১০ সেপ্টেম্বর। তবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *