Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / স্টিফেন হকিং যাঁর দেহ ছিল বিকালঙ্গ কিন্তু উন্নত মস্তিষ্ক । স্টিফেন হকিং সম্পর্কে

স্টিফেন হকিং যাঁর দেহ ছিল বিকালঙ্গ কিন্তু উন্নত মস্তিষ্ক । স্টিফেন হকিং সম্পর্কে

সবার খবর, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: স্টিফেন হকিং। বর্তমান বিশ্বের মহান বিজ্ঞানী আজ ৭৬ বছর বয়সে চলে গেলেন পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে। এ্যামিওট্রফিক লেটরল স্কলেরোসিস নামের রোগে তিনি সারা জীবন প্রায় ভুগেছেন। এই রোগের চিকিৎসা ছিলনা। ফলে তার সারা শরীর বিকালঙ্গ হয়ে গেছিল। কিন্তু তার মস্তিষ্ক ঠিক ছিল এ-অবস্থাতেও। স্টিফেন হকিং হুইল চেয়ারে বসে ব্ল্যাক হোল ও বিগ ব্যাং সম্বন্ধে ধারণা দেন। এই অবদানের জন্য আমেরিকার সরকার তাঁকে বিশিষ্ট নাগরিকের সম্মান প্রদান করেন।
বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং

চলুন জেনে নিই স্টিফেন হকিং সম্পর্কে কিছু তথ্য-

১. স্টিফেন হকিং জন্ম গ্রহণ করেন ৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৪২ সালে।
২. পিতা ফ্রাঙ্ক চিকিৎসা বিজ্ঞানে এবং মা ইসাবেলে দর্শনশাস্ত্র, অর্থশাস্ত্র ও রাজনীতির ওপর শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন। স্টিফেন হকিং-এর পিতা-মাতা দুজনেই অক্সফোর্ড বিশ্বাবিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছিলেন।
৩. স্টিফেন হকিং ১২টি উচ্চ ডিগ্রী লাভ করেছিলেন।
৪. স্টিফেন হকিং কোয়ান্টাম গ্র্যাভিটি ও বিশ্ব বিজ্ঞান থিওরি ছাড়াও একটি বই লেখেন। বইটির নাম ‘আ ব্রীফ হিস্ট্রি অফ টাইম’। বইটি আন্তর্জাতিক বাজারে বেস্ট সেলার হয়। এবং মানুষের ভেতর প্রভূত সাড়া ফেলে।
৫. বিজ্ঞানে স্টিফেন হকিংয়ের অবদানের জন্য ১৯৭৯ সালে আলবার্ট আইনস্টাইন মেডেল, ১৯৮২ তে অর্ডার অফ দ্য ব্রিটিশ এম্পায়ার এবং ২০১৫ তে BBVA Foundation Frontiers of Knowledge পুরুস্কারে ভূষিত হন।
৬. হকিং কেমব্রীজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন। এবং তিনি জেন ওয়াইল্ড নামে এক মহিলাকে বিয়ে করেন।
৭. স্টিফেন হকিং ইরাকে আমেরিকার আগ্রশনকে ‘ক্রাইম’ বলে অভিহিত করেন। ওঁ- ইজরায়েলকে আকাডেমিক বয়কোটের সাপোর্টার ছিলেন।

আরও পড়ুন: সুন্দর ও শান্তির দেশ । যেখানে নাই কোনো সেনা, নাই কোনো নেভি !

Check Also

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড

৯১৯ জন পুরুষের সাথে দৈহিক সম্পর্ক তৈরি করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বুকে নাম!

সবার খবর, ওয়েব ডেস্ক: গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বুকে নাম তোলার জন্যে পৃথিবীর মানুষ কতো কি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *