Home / জাতীয় / অটল বিহারি বাজপেয়ী না থাকলে বিজেপির এই সুদিন আসতো না

অটল বিহারি বাজপেয়ী না থাকলে বিজেপির এই সুদিন আসতো না

সবার খবর, নিউজ ডেস্ক: ভারতীয় জন সংঘ থেকে ১৯৮০ সালে ভারতীয় জনতা পার্টি অর্থাৎ বিজেপি তৈরি হয়। অটল বিহারি বাজপেয়ী প্রথম বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি নির্বাচিত হন। অটল বিহারির স্বচ্ছ ছবির ছত্রছায়ার নীচে বিজেপি অল্প সময়ে খুব বিস্তার লাভ করেছিল। আরএসএস-এর বিচার ধারা, অযোধ্যার রাম মন্দির এবং কাশ্মিরের ৩৭০ ধারার মতো ইস্যু নিয়ে আন্দোলন করার জন্যে পার্টির ওপর সাম্প্রদায়িকতার শিলমোহর লাগিয়ে দেয় রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহল। কিন্তু অটল বিহারির ব্যক্তিত্বের সামনে সব ম্লান হয়ে যায়। আজ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি অসুস্থ বিছানায় শুয়ে আছেন। না চলাফেরা করতে পারেন না কিছু বলতে পারেন। শুধু এটাই বলা যায় অটলের মতো মানুষ না থাকলে বিজেপির উথ্থান কল্পনাও করা যেতো না।
অটল
অটল বিহারির সভাপতিত্বে ১৯৮০ সালে মুম্বাইয়ে প্রথম অধিবেশন হয়। সেখান থেকেই বিজেপি কংগ্রেস বিরোধী রূপরেখা তৈরি করে ফেলেন। অপারেশান ব্লু স্টার এবং শ্রীলঙ্কা নীতির জন্যে ইন্দিরা গান্ধীর খুব সমালোচনা করেছিলেন।
বাজপেয়ী
১৯৮৪ সালে অটল বিহারি তার সঙ্গীদের ভোটে লড়ার ব্যবস্থা করে দেন। কিন্তু সেই নির্বাচনের পূর্বে ইন্দিরা গান্ধীকে হত্যা করা হয়। ফলে রাজীব গান্ধী বিশাল ব্যবধানে জয় লাভ করেন। প্রথম বারের মতো বিজেপি খাতা খুলতে পারল। মাত্র দুটি আসনের বিনিময়ে। ১৯৮৯ সালে নির্বাচনে জনতা দলের সাথে জোট বেধে লড়েন। ফলে বিজেপির ব্যাপক পরিমাণে উথ্থান হয়। এবার বিজেপি পায় ৮৯ টি আসন। স্বপ্নের দৌড় অটলের হাত ধরে চলতে থাকে। ১৯৯৬ সালে প্রথম বারের মতো রাষ্ট্রপতি বিজেপিকে ডাকেন এবং সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে বলেন। সরকার তৈরি হলো। কিন্তু ১৩ দিনের মাথাতে সরকার পড়ে গেলো। ১৯৯৮ সালেও বিজেপির সরকার হয় কিন্তু সেই সরকারও বেশি দিন টিকেনি। এক বছরের মাথাতে পদত্যাগ করতে হয়। ১৯৯৯ সালে এনডিএ তৈরি হয়। এনডিএ গঠনের পিছনে অটল বিহারির অবদান অনিস্বিকার্য। প্রথম বারের মতো অ-কংগ্রেসী সরকার ভারতে গঠিত হয়। অটল বিহারির প্রধানমন্ত্রীত্বে পাঁচ বছর এনডিএ সরকার ভারতবর্ষ শাসন করেন। সেই সময় অটলের নেতৃত্বে ভারতবর্ষ অভুতপূর্ব সাফল্য অর্জন করে। সারা ভারতের গ্রামের রাস্তাকে শহরের রাস্তার সাথে জুড়ে দেওয়া হয়। এই সরকারের ‘প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনা’ ছিলো বড়ো সাফল্য।
বিজেপীর প্রথম সভাপতি
তিনিই ভারতে বিজেপির পদ্মকে ফুটতে সাহায্য করেন। ২০০৪ সালে গোধরা দাঙ্গার জন্যে অটল বিহারি নরেন্দ্র মোদিকে রাজধর্ম পালন করার পরামর্শ দেন। এবং খবরে প্রকাশ মোদির ইস্তফা দাবি করেন তিনি কিন্তু আদবানি বিরোধিতা করায় তা সম্ভব হয়নি। অটল বিহারি বাজপেয়ীর তৈরি রথেই অমিত শাহ এবং নরেন্দ্র মোদি দ্রুত গতিতে ছুটে চলেছে পদ্ম হাতে এটা বলাই যায়।
আরও পড়ুন: যদি পৃথিবীতে এক সঙ্গে পরমাণু বোমা ফাটে তবে কি হবে?

Check Also

মিঠুন

মহান অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী গুরুতর অসুস্থ

সবার খবর, ওয়েব ডেস্ক: মনে হচ্ছে ইদানিং বলিউডের ওপর নজর লেগে গেছে। শ্রীদেবির মৃত্যুর পর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *