Breaking News
Home / জীবনী / বাংলাদেশ ক্রিকেট ও খালেদ মাসুদের জীবন

বাংলাদেশ ক্রিকেট ও খালেদ মাসুদের জীবন

নাম তার খালেদ মাসুদ । বাংলাদেশ দলের দ্বিতীয় টেস্ট ক্যাপটেন এবং বেস্ট উইকেট কিপার ব্যাট্‌সম্যান । তিনি বাংলাদেশের ক্রিকেটকে বিশ্বের দরবারে পরিচিত করিয়েছিলেন । তিনি শিখিয়েছিলেন কিভাবে কঠোর পরিশ্রমের বিনিময়ে পৃথিবীতে মাথা উচু করে বাচা যায় । ঘন্টার পর ঘন্টা নেটে ঘাম ঝরিয়েছেন তার সুফল শুধু নিজে পাননি গোটা দেশ পেয়েছে । চলুন আজ জেনে নিই খালেদ মাসুদের সময়কার বাংলাদেশ সম্পর্কে ।

খালেদ মাসুদ

সালটা ছিলো ১৯৯৭ তখনও বাংলাদেশ ক্রিকেটে বিশ্বে একদমই শিশু । ফলে বিশ্বকাপটাও খেলা হয়নি বাংলাদেশের ।বাংলাদেশ প্রথম বারের মতো স্কটল্যান্ডকে সেমি ফাইনালে হারিয়ে ১৯৯৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করে । কিন্তু আসল খেলাটা হয়েছিলো ১৯৯৭ –এর ১৩ এপ্রিল আইসিসি ট্রফির ফাইনাল ম্যাচে । প্রতিপক্ষ ওই টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট কেনিয়া । স্টিভ টিকোলোর মতো দুর্ধর্ষ ব্যাট্‌সম্যান ছিলো কেনিয়া দলে । বাংলাদেশ ক্রিকেটপ্রেমীদের ভয়ও তাকে নিয়েই । শেষ পর্যন্ত টিকোলো ১৫২ বলে ১৪৭ রানের মজবুত একটি ইনিংস খেলে দিলেন । কেনিয়ার রান দাড়ালো ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৪১ । তখনকার দিনে সমিহ করার মতো রান । সেদিন আর বৃষ্টির কারোনে বল গড়ালো না মাঠে । পরের দিন শেষ বেলায় । বাংলাদেশের কাছে টার্গেট দাড়ালো ২৫ ওভারে ১৬৬ । নাইমুর রহমান এবং রফিককে ওপেন করতে পাঠানো হয় ০ রানে নাইমুর আউট হয়ে যায় । চাপে পড়ে গেলো বাংলাদেশ কিন্তু সেদিনের মহামূল্যবান ইনিংস উপহার দিলেন অখ্যাত রফিক ১৫ বলে ২৬ রান করে । তখন লাইভ সম্প্রচার বলতে ঢাকা বাংলাদেশ বেতার থেকে খোদাবক্সের ধারাভাষ্য । গোটা বাংলাদেশ সেদিন রেডিও কানে দিয়ে বসেছিলো টানটান উত্তেজনায় । খেলা আস্তে আস্তে শেষ ওভারের দিকে গড়ালো । তখন ক্রিজে আছে খালেদ মাসুদ আর নয় নাম্বার ব্যাটসম্যান হাসিবুল হোসেন শান্ত । রান দরকার ৫ বলে ১১ । স্ট্রাইকিং প্রান্তে খালেদ মাসুদ প্রথম বলেই ছক্কা হাকালেন । রান দরকার ৫ বলে ৫ । দ্বিতীয় বল মিস এবং তৃতীয় বলটি ভাগ্য গুণে ওয়াইড । পরের বলে এক রান নিলেন ।স্ট্রাইকিং প্রান্তে শান্ত, একবল মিস করলেও পরের বলে ২ রান নিয়ে নিলো ফলে শেষ বলে প্রয়োজন ১ রান কোনো মতে লাগিয়েই দৌড় দিলেন এবং বাংলাদেশ ক্রিকেটের স্বর্ণের অধ্যায়ের শুরু সেখান থেকেই ।

Khaled masud

সেই টুর্নামেন্টে খালেদ মাসুদ খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেছিলো । খালেদ মাসুদের আরেক নাম “পাইলট” । বাংলাদেশে তাকে পাইলট বলেই ডাকে সবাই । তার বাবা ছিলো প্রাক্তন ফুটবলার শামসুল ইসলাম মোল্লা । তিনি টেস্টে ৪৪ ম্যাচের ৮৪ ইনিংসে ১৯.০৪ গড়ে ১৪০৯ রান করেন এবং প্রথম বাংলাদেশি উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান হিসাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেন । তিনি তার গ্লাভ্‌স দুটি ২০০৫ সালে মুসফিকুর রহমানের হাতে তুলে দেন । ২০০৭ সালে নিজেকে বিশ্বকাপ দল থেকে সরিয়ে নেন । এই ঘটনাটি বাংলাদেশ মিডিয়াতে খুব সমালোচিত হয়েছিলো । যদিও মুসফিক বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ৫৬ রানের একটি সলিড ইনিংস খেলেছিলেন এবং বাংলাদেশ একটি সুন্দর জয়ের স্বাদ পেয়েছিলো । তার একবছর বাদেই খালেদ মাসুদ পাইলট ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহন করলেন ।
এভাবেই শুরু হয়েছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেটের যাত্রা বা সপ্নের দৌড় । যেখানে খালেদ মাসুদ পাইলট সঠিকভাবেই তার দায়িত্ব পালন করেছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের হয়ে একথা বলাই যায় ।

আরও পড়ুন : রোহিত শর্মার ব্যাটিং দেখে খুশিতে কেদে ফেললেন স্ত্রী

Check Also

ক্রিকেট ম্যাচ

ভারতকে প্রথম টেস্ট ক্রিকেট ম্যাচ জেতান যে অধিনায়ক

সবার খবর, স্পোর্টস ডেস্ক: ক্রিকেট ম্যাচ কার না ভালো লাগে। দুনিয়াতে অনেক ক্রিকেটার আছে যারা …